শ্রমওকর্মসংস্থানমন্ত্রক

শ্রম ও কর্মসংস্হান মন্ত্রকের কাজের বার্ষিক পর্যালোচনা- ২০১৮

Posted On: 14 DEC 2018 1:51PM by PIB Kolkata

নয়াদিল্লি, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৮

 

      সরকারের শ্রম ও কর্মসংস্হান মন্ত্রক প্রত্যেক শ্রমিকের চাকরি ও বেতনের নিরাপত্তা এবং সামাজিক নিরাপত্তার প্রতি দায়বদ্ধ। দেশের শ্রম আইনগুলি বলবৎ করার ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতার পাশাপাশি, চলতি বছরে সরকার, শ্রমজীবি মানুষের মর্যাদা রক্ষায় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ নিয়েছে। এই বছরেই জাতীয় শ্রম কমিশনের সুপারিশ অনুসারে, কেন্দ্রীয় শ্রম আইনগুলি সরলীকরণ, একত্রিত ও যুক্তিগ্রাহ্য করে চারটি বিধি প্রণয়নের উদ্যোগ নিয়েছে মন্ত্রক। এই বিধিগুলিতে বেতন, শিল্প সম্পর্ক, সামাজিক নিরাপত্তা ও কল্যাণ, পেশাগত নিরাপত্তা এবং শ্রমিকদের স্বাস্হ্য ও কাজের মত বিষয়গুলি অন্তর্ভুক্ত করার কথা ভাবা হয়েছে। এই বিষয়গুলিতে আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

      শ্রম ও কর্মসংস্হান মন্ত্রক দেশের শ্রম আইনগুলি কার্যকর করার সুবিধার্থে শ্রম সুবিধা পোর্টাল নামে একটি অনলাইন ব্যবস্হা চালু করেছে। এরফলে একদিকে যেমন শ্রম আইনগুলি যথাযথভাবে কার্যকর করা সম্ভব হবে, অন্যদিকে সমগ্র বিষয়ে স্বচ্ছতা আসবে।

      ২০১৭ সালেই নারী শ্রমিক ও কর্মচারীদের সুবিধার্থে মাতৃত্বকালীন ছুটি ১২ সপ্তাহ থেকে ২৬ সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। চলতি বছরে সরকার এই ছুটির মধ্যে ৭ সপ্তাহের বেতনের ব্যয়ভার বহনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

      গ্র্যাচুইটি আইনটি চলতি বছরেই সংশোধন করে, গ্র্যাচুইটির উর্ধ্বসীমা ১০ লক্ষ টাকা থেকে বাড়িবে ২০ লক্ষ টাকা করা হয়েছে। চলতি বছরে জাহাজ পুনর্ব্যবহার শিল্পের সঙ্গে জড়িত শ্রমিকদের স্বাস্হ্য ও নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে গুজরাটের আলাং এ একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। ভারত সরকারের পক্ষ থেকে ব্রিকস দেশগুলির মধ্যে সামাজিক ও শ্রম ক্ষেত্রে এক আন্তর্জাতিক সমঝোতাকে অনুমোদন করা হয়েছে।

      চলতি বছরে শ্রম ক্ষেত্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ৩৩৬৮০টি অভিযোগের মধ্যে ৩২৮৩৭টির নিষ্পত্তি করা হয়েছে। চলতি বর্ষে খনি শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে উন্নত ব্যবস্হা চালু করা হয়েছে। নাগপুরের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ মাইনার্স হেল্থ-এর সহযোগিতা পাথর খাদানের শ্রমিকদের মধ্যে সিলিকোসিস রোগের প্রাদুর্ভাব চিহ্নিতকরণ এবং তা নিরাময়ের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।

      নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কর্মসংস্হানের ক্ষেত্রে অস্হায়ী ঠিকা শ্রমিকদের, স্হায়ী শ্রমিকদের অনুরূপ সুযোগ-সুবিধা দেবার বিধিবদ্ধ ব্যবস্হা করা হয়েছে। এই বছরেই এ সংক্রান্ত নির্দেশনামা জারি করা হয়েছে।

      কর্মচারী ভবিষ্যনিধি সংগঠন শ্রমিক-কর্মচারীদের জন্য অনলাইনে ই-মনোনয়ন চালু করেছে। তাছাড়া সমস্ত ভবিষ্যনিধি সংগঠনের পেনশন প্রাপকদের একটি পোর্টাল চালু করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সকলের সুবিধার্থে এই বছর থেকেই প্রধানমন্ত্রী রোজগার প্রোসাহন যোজনার আওতায়, কর্মসংস্হানকারীদের প্রদেয় ভবিষ্যনিধিবাবদ অর্থ তিন বছরের জন্য সরকার দিতে শুরু করেছে। কর্মচারী স্বাস্হ্য বিমার সুবিধা সারা দেশের শ্রমিকদের কাছে পৌঁছে দিতে প্রত্যেক জেলায় একটি করে ই.এস.আই.এর ডিসপেন্সারি তথা শাখা অফিস চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ই.এস.আই. সুবিধা সংক্রান্ত নিয়মকানুন মেনে সহজে সুবিধা পেতে উমং-চিন্তা সে মুক্তি নামে একটি অ্যাপ চালু করা হয়েছে। সারা দেশে ই-এস.আই বা কর্মচারী স্বাস্হ্য বিমার সুবিধা ছড়িয়ে দিতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

      এছাড়াও চলতি বছরে কর্মসংস্হানের সুবিধাগুলির লক্ষ্যে ন্যাশনাল কারিগর সার্ভিস নামে এক পরিষেবার মাধ্যমে, কর্মদাতা, প্রশিক্ষনদাতা ও কর্মপ্রার্থীদের এক ছাতার তলার আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এই পোর্টালে সরকারী চাকরির বিজ্ঞাপন দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

 

CG/PB/NS



(Release ID: 1555922) Visitor Counter : 35

Read this release in: English